প্রকৃতি ও শরীয়ত স্বীকৃত অধিকার

লেখক : মুহাম্মাদ ইবন সালেহ আল-উসাইমীন

অনুবাদ: মুহাম্মাদ আব্দুল মতিন

সম্পাদনা: আবু বকর মুহাম্মাদ যাকারিয়া

উৎস:

ইসলাম প্রচার ব্যুরো, রাবওয়াহ, রিয়াদ

বর্ণনা

প্রকৃতি ও শরীয়ত স্বীকৃত অধিকার: আল্লাহ প্রদত্ত শরীয়াতের সৌন্দর্য ও সুষমা ঠিক তখনই প্রতিভাত হতে পারে যখন অত্যন্ত ইনসাফপূর্ণভাবে তার প্রতি যত্নবান হওয়া যায়। অর্থাৎ সে ব্যাপারে কোনো প্রকার হ্রাস-বৃদ্ধি তথা সংকীর্ণতা ও অতিরঞ্জন না করে প্রত্যেককেই তার প্রাপ্য অধিকার দেওয়া হয়। আল্লাহ তা‘আলা এই মর্মে নির্দেশ দিয়েছেন যে, তোমরা সমাজে আদল ও ইনসাফ কায়েম করবে, লোকদের প্রতি ইহসান করবে এবং আত্মীয়-এর অধিকার সংরক্ষন করবে। আল্লাহ তা‘আলা ইনসাফের ভিত্তিতেই এই পৃথিবীতে রাসূলদের প্রেরণ করেছেন, কিতাব অবতীর্ণ করেছেন এবং দুনিয়া ও আখেরাতের যাবতীয় কাজ-কর্ম পরিচালনা করছেন।
আমাদের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, ‘আদল’ কি। আসলে আদল হচ্ছে এই যে, প্রত্যেককে তার প্রাপ্য মর্যাদা ও অধিকারসমূহ সঠিকভাবে অর্পণ করা। অধিকার সম্পর্কে সম্যক জ্ঞান ব্যতীত তা পালন করা আদৌ সম্ভব নয়। এগুলো জানা থাকলেই কেবল প্রত্যেককে তার প্রাপ্য মর্যাদায় ভুষিত করা যেতে পারে। আমি আলোচ্য গ্রন্থে বিশেষ বিশেষ কতিপয় অধিকার সম্পর্কে আলোচনা করার প্রয়াস পেলাম। আমি বিশ্বাস করি, যদি কোনো ব্যক্তি এগুলো সম্পর্কে জানতে পারেন, তা হলে তিনি তার সাধ্যানুযায়ী সেগুলোকে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা করতে পারবেন।
অধিকারগুলো হচ্ছে এই :
১. আল্লাহর অধিকার।
২. রাসূলের অধিকার।
৩. পিতা-মাতার অধিকার।
৪. সন্তান-সন্তুতির অধিকার।
৫. আত্মীয়-স্বজনের অধিকার।
৬. স্বামী-স্ত্রীর অধিকার।
৭. শাসক ও শাসিতের অধিকার।
৮. প্রতিবেশীর অধিকার।
৯. সাধারণ মুসলমানদের অধিকার।
১০. অমুসলিম নাগরিকদের অধিকার।

এ পেইজ এর দায়িত্বশীলের কাছে টীকা লিখুন

আল-কুরআনুল কারীমের শেষ তিন পারার তাফসীর সাথে আছে গুরুত্বপূর্ণ কিছু আহকাম ও মাসায়েল
2
আপনার মতামত আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ