• video-shot

    YOUTUBE

    মানব জাতির হিদায়াতের প্রধান উৎস কুরআন ও সুন্নাহ। পার্থিব জীবনের সুখ-সমৃদ্ধি ও পরকালীন জীবনের মুক্তির একমাত্র উপায় কুরআন ও সুন্নাহর বাস্তবায়ন। বিদায় হজের ভাষণে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, আমি তোমাদের মাঝে দু’টি জিনিস রেখে যাচ্ছি, যতক্ষণ পর্যন্ত তোমরা তা আঁকড়ে ধরবে, ততক্ষণ তোমরা কখনো পথভ্রষ্ট হবে না। একটি হলো আল্লাহর কিতাব, অন্যটি আমার সুন্নাত। আলোচ্য ভিডিও বক্তব্যটিতে সম্মানিত আলোচক পূর্বসূরীদের নীতিকে আঁকড়ে ধরে কুরআন-সুন্নাহ মোতাবেক জীবন গঠন করার গুরুত্ব তুলে ধরেছেন।

  • video-shot

    MP4

    এ ভিডিওটিতে আলোচক মিডিয়ার সংজ্ঞা, প্রকারভেদ, গুরুত্ব, প্রয়োজনীয়তা ও ব্যবহারবিধি তুলে ধরেছেন। শেষে লিখিত অথবা সরাসরি প্রশ্নের তথ্য ভিত্তিক উত্তর দেওয়া হয়েছে।

  • video-shot

    MP4

    প্রকৃত মু’মিনের পরিচয় মেলে বিপদের সময়। কারণ একমাত্র তারাই বিপদের সময় টিকে থাকতে পারে। যারা আল্লাহকে পেতে চায় তাদের লক্ষ্য এই দুনিয়া নয়; আখেরাত। জান্নাতের বিনিময়ে তারা সবকিছু ত্যাগ করতে পারে। বর্তমান সময়ে ইসলাম নিয়ে কিছু বলতে গেলে মু’মিনরা আক্রমনের শিকার হয়। ইসলামের উপর থাকার কারণে অতীতে উম্মাতগণ কঠিন পরীক্ষার সম্মুখীন হয়েছেন তদ্রুপ এ উম্মাতকেও পরীক্ষার সন্মুখীন হতে হবে। যাদের সামনে আল্লাহ এবং ইসলামের কথা বলা হলে তাদের অন্তর কেঁপে না ওঠে বরং উল্টা ইসলামের প্রতি অনীহা সৃষ্টি হয় তারা প্রকৃত মুসলিম নয়।

  • video-shot

    MP4

    যেখানে ইমামগণ রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর অনুসরণ করেছেন সেখানে আমরা ঈমামদের নাম দিয়ে অনুসরণ করে বিভক্ত হচ্ছি। ইমামদের অবস্থান কখনো সুন্নাহর বাইরে ছিল না। আল্লাহ কসম করে বলছেন আমরা ততক্ষণ ঈমানদার নই যতক্ষণ না আমরা পারস্পরিক বিরোধের সমাধান রাসুলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর মাধ্যমে করা হবে।এখানে কোনো ব্যক্তি, দল এর কথা প্রাধান্য পাবে না। ভালো বিদ‘আত এবং খারাপ বিদ‘আত বলতে কিছুই নেই। সব বিদ‘আতই পথভ্রষ্টতা। সকল মত পথ পরিহার করে একমাত্র সুন্নাহকে আকড়ে ধরে থাকতে হবে। ঈমামগণ উনাদের অন্ধভাবে অনুসরণ করতে নিষেধ করেছেন।

আপনার মতামত আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ