বর্ণনা

ফতোয়াটি একটি প্রশ্নের উত্তর। প্রশ্নটি হল: জিদ্দাবাসীদের জন্য বিদায়ী তওয়াফ না করেই চলে যাওয়া এবং ভীড় কমার পর দ্বিতীয়বার ফিরে এসে বিদায়ী তওয়াফ সম্পন্ন করা কি উচিত হবে?

সম্পূর্ণ বিবরণ

> > > >

প্রশ্ন-

বিদায়ী তওয়াফের পূর্বে মক্কা পরিত্যাগ করা ভীড় কমার পর এসে বিদায়ী তওয়াফ আদায় প্রসঙ্গে

 

জিদ্দাবাসীদের জন্য বিদায়ী তওয়াফ না করেই চলে যাওয়া এবং ভীড় কমার পর দ্বিতীয়বার ফিরে এসে বিদায়ী তওয়াফ সম্পন্ন করা কি উচিত হবে?

 

উত্তর-  

আলহামদুলিল্লাহ

 

হাজীদের কারো পক্ষেই বিদায়ী তওয়াফ আদায়ের পূর্বে মক্কা পরিত্যাগ করা বৈধ নয়

 

শায়খ ইবনে উসাইমীন - রাহমাতুল্লাহি আলাইহি- কে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল, যে জেদ্দাবাসীদের জন্য বিদায়ী তওয়াফ না করেই  মিনা থেকে সরাসরি জেদ্দায় চলে যাওয়া এবং পরবর্তীতে এসে বিদায়ী তওয়াফ সেরে নেয়া কি উচিত হবে?

 

উত্তরে ইবেন উসাইমীন - রাহমাতুল্লাহি আলাইহি- বলেছেন:

জেদ্দাবাসী অথবা অন্য কোনো দেশের অধিবাসীদের জন্য বিদায়ী তওয়াফ না করে যার যার এলাকায় চলে যাওয়া উচিত হবে না, উদ্দেশে যে পরবর্তীতে, ভীড় কমলে,  ফিরে এসে বিদায়ী তওয়াফ আদায় করে নেবে বরং বিদায়ী তওয়াফ সম্পন্ন করার পূর্বে মক্কা ত্যাগ না করা ওয়াজিব; কেননা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন: (তোমাদের কেউ যেন বায়তুল্লাহর সাথে শেষ সাক্ষাতের পূর্বে প্রস্থান না করে) ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেছেন: মানুষ সকল দিকেই চলে যাচ্ছিল, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন: (তোমাদের কেউ যেন বায়তুল্লাহর সাথে শেষ সাক্ষাতের পূর্বে প্রস্থান না করে) ইবনে উসাইমীন ফতোয়াসমগ্র (২৩/৩৫৩)

যদি কেউ চলে যাওয়ার পর ফিরে এসে বিদায়ী তওয়াফ আদায় করে নেয় তবে তা কোনো কাজে আসবে না শায়খ ইবনে উসাইমীন বলেন: (যদি কেউ মক্কা থেকে জেদ্দার উদ্দেশে বের হয় এবং জেদ্দায় পৌঁছে যায়, পরবর্তীতে ফিরে এসে  সে যদি বিদায়ী তওয়াফ সম্পন্ন করে নেয়, তবে এতে  তার কোনো ফায়দা হবে  না; কেননা সে মক্কা থেকে ইতঃপূর্বে বের হয়ে গিয়েছে, বিদায় হয়ে গিয়েছে, সে হিসেবে বিদায়ী তওয়াফ তার পক্ষে কীভাবে উপকারে আসবে?) ইবনে উসাইমীন ফতোয়াসমগ্র ২৩/৩৫৩)

 

আপনার মতামত আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ